BJP নেতাদের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগের পর পাল্টা FIR-এর মুখে যুবতী!

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: টানা এক বছর ধরে তাঁকে গণধর্ষণ করেছেন ৯ জন। ধর্ষকদের মধ্যে ছিলেন BJP-র ৪ হেভিওয়েট নেতা। তাঁদের মধ্যে দু'জন আবার কাউন্সিলার। গুজরাতের নালিয়া পুলিশ স্টেশন এই অভিযোগ এনে FIR দায়ের করেছিলেন এক যুবতী। এবার ২৪ বছরের সেই 'গণধর্ষিতা'কেই পড়তে হল FIR-এর মুখে। তাঁর প্রাক্তন স্বামী তাঁর বিরুদ্ধে বিশ্বাসভঙ্গ ও প্রতারণার অভিযোগ এনেছেন। BJP নেতাদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্যই তাঁদের এই দিন দেখতে হল কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। এই গণধর্ষণ মামলায় বিধানসভায় বারবার অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে শাসকদলকে। অভিযোগকারী প্রাক্তন স্বামী কল্পেশ মোমায়ার সঙ্গে ওই মহিলার বিয়ে

McDonald's আর Domino's-ও হেরে গেল #MadeInIndia হলদিরামের কাছে!

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: যতই পিজ্জা, বার্গারের লোভনীয় বিজ্ঞাপনে টিভির পর্দা ছেয়ে যাক, ভারতবাসীর পছন্দের স্ন্যাকস কিন্তু ভুজিয়া, সিঙাড়াই। বিক্রিবাটায় ম্যাকডোনাল্ড, ডমিনোজের মতো মার্কিন ফুড জায়ান্টকে ১০ গোল দিল দেশি হালওয়াই হলদিরাম। ২০১৬-য় হলদিরামের রেভিনিউ-এর ১৩% বেড়ে ছাড়িয়েছে ৪০০০ টাকার গণ্ডি। যা পেছনে ফেলেছে ভারতে ম্যাকডোনাল্ড, ডমিনোজের মিলিত আয়কে। শুধু ম্যাকডি, ডমিনোজ নয়, হলদিরামের কাছে গো-হারা হেরেছে হিন্দুস্তান ইউনিলিভারের প্যাকেজড ফুড ডিভিশনের গোটাটাই। হলদিরামের বিক্রির অর্ধেকেও পৌঁছতে পারেনি হিন্দুস্তান ইউনিলিভার। হলদিরামের কাছে হেরে ভূত নেস্টলের ম্যাগিও। নাগপুরের এই

সম্বল দিনমজুরি, অনাহারেই দিন কাটে ফুলন দেবীর মা-বোনের

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: অনাহারে প্রায় মৃত্যুশয্যায় 'ব্যান্ডিট কুইন' ফুলন দেবীর মা। বেশিরভাগ দিনই ঠিকমতো খাওয়া জোটে না ৭০ বছরের মুলা দেবীর। এক সময় যে দস্যুরানির ত্রাসে কাঁপত চম্বল, তাঁর মা ও বোনের গোটা মাস এখন কাটে মাত্র ২০০ থেকে ৩০০ টাকায়। বুন্দেলখণ্ডের জালাউন জেলার শেখপুর গুধা গ্রামে ছেঁড়া কাপড় আর প্লাস্টিকে মোড়া ঝুপড়িটা দেখে কারোর পক্ষেই বিশ্বাস করা সম্ভব নয় যে এটাই এক সময়ের সংসদের মা ও বোনের মাথা গোঁজার জায়গা। ৮০-র দশকে যখন চম্বল কাঁপাতেন ফুলন, তখন বাড়িতে লোকজনের যাতায়াত লেগেই থাকত। রাস্তায় বেরোলে সবাই মাথা নিচু করে সম্মান দেখাতেন মুলা দেবীকে। টাকা-পয়সার কোনও অভাব ছি

কারণ ছাড়াই এত বেশি সিজার কেন , প্রশ্ন মানেকার

নয়াদিল্লি : যাবতীয় নিয়ম -কানুনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দেশে বেড়েই চলেছে সি -সেকশন বা সিজারিয়ান ডেলিভারির সংখ্যা৷ এ বার এই নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন কেন্দ্রীয় নারী ও শিশু কল্যাণমন্ত্রী মানেকা গান্ধী৷ চিকিত্সকদের একাংশকে তীব্র ভত্র্‌সনা করে বললেন , ‘সেই সব স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞদের লজ্জা হওয়া উচিত , যাঁরা শুধু মাত্র টাকার জন্য সিজার করার পরামর্শ দেন৷ ’ একই সঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখে তিনি অনুরোধ করলেন , হাসপাতাল এবং নার্সিংহোমগুলিকে নির্দেশ দিতে যাতে তারা নিয়মিত এই সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করে৷ সম্প্রতি ‘চেঞ্জ ডট ওআরজি ’ পোর্টালে একটি অনলাইন পিটিশন জমা পড়ে , যাতে অভিযোগ করা হয় , ‘শুধুমাত্র মুনাফা