হাতজোড় করে কেন্দ্রের কাছে পরীক্ষা বাতিলের আর্জি কেজরিওয়ালের

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: দেশে আছড়ে পড়েছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ। ব্যতিক্রম নয় রাজধানী দিল্লিও। দিল্লির সামগ্রিক করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে CBSE বোর্ডের দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার কেন্দ্রের কাছে আবেদন জানালেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। বিগত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ হাজার ৫০০ জন, মৃত্যু হয়েছে ৭২ জনের। এই পরিস্থিতিতে অফলাইনে পরীক্ষা নিলে সংকটে পড়তে পারে ছাত্রছাত্রীদের জীবন, মত কেজরিওয়ালের।তিনি বলেন, '৬ লাখ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষা দেবে এবং ১ লাখ শিক্ষক শিক্ষিকা পরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত থাকবেন। সেক্ষেত্রে পরীক্ষাকেন্দ্রগুলি কোভিড সংক্রমণের হটস্পট হয়ে উঠতে পারে। পড়ুয়াদের জীবন অত্যন্ত মূল্যবান। আমি হাতজোড় করে CBSC-র কাছে পরীক্ষা বাতিলের আবেদন জানাচ্ছি। অফলাইন পরীক্ষা নেওয়ার পরিবর্তে ইন্টারনাল অ্যাসেসমেন্ট বা অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে।' পরীক্ষা পিছনোর দাবিতে ইতিমধ্যে সরব হয়েছেন কংগ্রেসের রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। এবার একই সুরে কথা বললেন কেজরিওয়ালও।81970768আগামী ৪ মে থেকে থেকে শুরু হচ্ছে CBSE-র ১০ ও ১২ ক্লাসের বোর্ডের পরীক্ষা। দশম শ্রেণীর পরীক্ষা চলবে ৭ জুন অবধি। দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা চলবে ১১ জুন পর্যন্ত। দুটি শিফটে হবে দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা। প্রথমটি সকাল ১০টা ৩০ মিনিট থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত চলবে। দ্বিতীয় শিফট দুপুর ২টো ৩০ মিনিট থেকে বিকেল ৫টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত চলবে। কিন্তু দেশে যখন হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, তখন অফলাইনে পরীক্ষা নেওয়া কতটা যুক্তিযুক্ত হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহল থেকে। প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই CBSE-র তরফে জানানো হয়েছিল, যে যদি কোনও পরীক্ষার্থীর কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসে এবং সে প্র্যাক্টিকাল পরীক্ষা না দিতে পারে, তাহলে তাঁর জন্য পরবর্তীতে পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। উল্লেখ্য, ১ মার্চ থেকে ১১ জুনের মধ্যে স্কুলগুলিকে প্রাক্টিকাল পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে CBSE। টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন